ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর , ২০২১ ● ১১ কার্তিক ১৪২৮

সাগরে নেমে শোক সাগরে ঐশিক ও অভ্র

Published : Saturday 18-September-2021 22:23:14 pm
এখন সময়: মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর , ২০২১ ২২:০৯:১৬ pm

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাথে থাকা চারবন্ধু আটক, যশোরে শোকের মাতম

বিল্লাল হোসেন : বন্ধুদের সাথে বক্সবাজারে আনন্দ ভ্রমণে গিয়েছিলেন যশোরের মেধাবী কলেজ ছাত্র রাফিদ ঐশিক (২৬) ও মেহের ফারাবী অভ্র (২৫)। শুক্রবার দুপুরে ৪ বন্ধুর সাথে সাগরের পানিতে গোসল করতে নেমেছিলেন তারা। পরে যা ঘটে তা হৃদয় বিদারক ও মর্মান্তিক। গোসলের ফাকে হঠাৎ নিখোঁজ হয় ঐশিক ও অভ্র। এরপর ঘটনার দিন বিকেলে ঐশিক ও শনিবার অভ্রর মৃতদেহ উদ্ধার হয়। দুই বন্ধুর মৃত্যুর খবরে যশোরে শোকের মাতম চলছে। তরতাজা দুই বন্ধুর আকস্মিক মৃত্যু যেনো মানতে পারছেন না পরিবার ও স্বজনেরা। ঐশিক যশোর  উপশহর এ ব্লক এলাকার কবি ও গীতিকার কাসেদুজ্জামান সেলিমের ছেলে ও অভ্র  শহরের লাল দীঘিরপাড়ের বাসিন্দা কলেজ শিক্ষক শাহরিয়ার মেহেরের ছেলে। তাদের মৃত্যুর ঘটনায় সাথে থাকা ৪ বন্ধুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। 

কক্সবাজারের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট সৈয়দ মুরাদ হোসেন জানান,  শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) কক্সবাজার সৈকতের সি-গাল পয়েন্ট সাগর এলাকায় ৬ বন্ধু  গোসলে নামে। এসময় ঐশিক ও অভ্র সমুদ্রের পানিতে নিখোঁজ হন। খবর পেয়ে সৈকতের লাইফগার্ড কর্মীরা ঐশিককে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করলেও অভ্র নিখোঁজ ছিলেন। পরে শনিবার দুপুরে নাজিরারটেক বাঁকখালী নদীর সমৃদ্র মোহনায় তার মৃতদেহ ভেসে ওঠে। নির্বাহী ম্যাজিস্টেট সৈয়দ মুরাদ হোসেন আরও জানান, তাদের নিখোঁজের ব্যাপারে সাথে থাকা বন্ধুরা পুলিশকে অবহিত করেননি। যে কারণে মৃত্যু নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। যে কারণে গোসলের সময় সাথে থাকা ৪ বন্ধুকে পুলিশ আটক করেছে। তারা হলেন- যশোরের মাসুদুর রহমানের ছেলে রায়হান উদ্দিন, মুমিন উদ্দিনের ছেলে রোহান উদ্দিন, শওকত হাসানের ছেলে মুহিবুল হাসান ও মাহফুজুর রহমান খানের ছেলে ফারদিন খান আরণ্য।

কাসেদুজ্জামান সেলিম কান্নাজড়িত কন্ঠে জানান, তার ছেলে ঐশিক যশোর ক্যান্টমেন্ট কলেজের অনার্স ১ম বর্ষের মেধাবী ছাত্র ছিলো। ১৬ সেপ্টেম্বর তার ছেলেসহ ৬ জন বক্সবাজারে বেড়াতে যায়। সমুদ্র যেনো ওর জীবনের কাল হলো। কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন সেলিম। তিনি আরও জানান, আনন্দ করতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত ছেলেটা আমার না ফেরার দেশে চলে গেলো। কোন ভাবেই বিশ্বাস হচ্ছেনা ঐশিক আর নেই। এই শোক সহ্য করার মতো না। আমার ছেলে ছাড়াও আরেক বন্ধু মারা গেছে। তাদের মৃত্যুর বিষয়ে অন্য বন্ধুরা কেনো পুলিশকে অবহিত না করাই মৃত্যু নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। তিনি মৃত্যুর মূল কারণ উদঘাটনের দাবি জানিয়েছেন। কাসেদুজ্জামান সেলিম জানান, দুই বন্ধুর মরদেহ বাড়িতে (যশোর) আনার জন্য বক্সবাজার  জেলা প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পরই সেখানে থাকা লোকজন মরদেহ নিয়ে রওনা হবেন। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করেন অভ্রের পিতা যশোর আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের প্রভাষক শাহরিয়ার মেহেরসহ পরিবারের লোকজন। শনিবার বিকেলে নিহত দুই বন্ধুর বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে রীতিমতো শোকের মাতম চলছে। পরিবারের লোকজন স্বজনদের কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে উপশহর এফ ব্লক ও লাল দিঘীর পাড় এলাকা। ছেলের ছবি নিয়ে হাউ মাউ করে কাঁদছেন অভ্রের মা। যেনো কথা বলার মতো শক্তি হারিয়েছেন তিনি। কাঁদছেন আর বলছেন শুক্রবার সকালেও মোবাইলে আমার সোনার সাথে কথা বলেছি। কক্সবাজার পৌঁছানোর কথা নিশ্চিত করে আনন্দ প্রকাশ করলো। এখন আমার সোনা পরপারে চলে গেছে। আনন্দ করে আর বাড়ি ফেরা হলো না। অভ্রর ছোট ভাই আবির হোসেন জানান, বড় ভাই অভ্র ঢাকার একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করতেন। করোনার কারণে তিনি বাড়িতেই ছিলেন। বন্ধুদের সাথে কক্সবাজার বেড়াতে গিয়ে সব শেষ হয়ে গেলো। কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছিনা ভাইয়া আর নেই। সমুদ্রে নামার কিছু সময় আগেও মায়ের সাথে কথা বলেছিলো। কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ মুনীরুল গিয়াস সাংবাদিকদের জানান, পুলিশ নিশ্চিত হতে পরেছে নিহত দুই বন্ধুর বাড়ি যশোরে। তারা সাগরের পানিতে ডুবে গেছেন না অন্য কোন কারণ আছে তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য ৪ বন্ধুকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। দুটি মৃতদেহ হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। পরিবারের লোকজন আসলে ময়নাতদন্তের পর লাশ  হস্তান্তর করা হবে। শনিবার রাত পৌনে ১০ টায় মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে নিহত ঐশিকের চাচা মোহাম্মদ রাসেল জানান, তাদের পরিবারের লোকজন লোকজন বক্সবাজার পৌঁছে গিয়েছেন। জেলা প্রশাসন ও পুলিশের সাথে যোগাযোগ করেছেন। রোববার ময়নাতদন্তের পর পুলিশ তাদেরকে মৃতদেহ বুঝে দেবেন। দুপুরের মধ্যে লাশ নিয়ে লোকজন যশোরের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে পারবেন বলে জানান।

এদিকে, প্রভাষক শাহরিয়ার মেহেরের ছেলে অভ্রসহ দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের অধ্যক্ষ জে এম ইকবাল হোসেন। কবি কাসেদুজ্জামান সেলিমের ছেলের মৃত্যুতে গভীর শোক, শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা এবং বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন বিদ্রোহী সাহিত্য পরিষদ (বিএসপি) নেতবৃন্দ। বিবৃতিদাতারা হলেন, বিএসপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কাজী রকিবুল ইসলাম, সহ-সভাপতি আমির হোসেন মিলন, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা মুন্না, সহসাধারণ সম্পাদক নূরজাহান আরা নীতি, সাংগঠনিক সম্পাদক রবিউল হাসনাত সজল, প্রকাশনা সম্পাদক আহমদ রাজু, কোষাধ্যক্ষ আবুল হাসান তুহিন, নির্বাহী সদস্য আহমেদ মাহাবুব ফারুক, অ্যাড, মাহামুদা খানম, সোনিয়া সুলতানা চাপা প্রমুখ।