ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ রবিবার, ১৬ মে , ২০২১ ● ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

কপিলমুনিতে সরকারি জায়গায় অবৈধভাবে পাকা ঘর নির্মাণের অভিযোগ

Published : Tuesday 16-February-2021 21:43:23 pm
এখন সময়: রবিবার, ১৬ মে , ২০২১ ০৫:৩৮:২৩ am

কপিলমুনি (খুলনা) প্রতিনিধি : খুলনার পাইকগাছা উপজেলার বাণিজ্যিক উপশহর কপিলমুনি। আর এই কপিলমুনি বাজারের মূল্যবান সব জায়গা একের পর এক দখল করছে ভূমিদস্যুরা। তাদের এহেন অবৈধ দখলকে ঘিরে ক্ষমতার উৎস নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে সচেতন মহলে। বিষয়টি ভূমি সংশিষ্ট বিভাগের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

সরেজমিনে সোমবার দখলকৃত একাধিক মূল্যবান জায়গায় গিয়ে দেখা যায়, কপিলমুনি সদরের পুরাতন লঞ্চঘাটের বাইপাস সড়কে যাতায়াতের পথ দখল করে পাকা ঘর নির্মাণ করছেন মোস্তাম মোড়ল নামের এক ব্যক্তি। সরকারি সম্পত্তি দখল করে ঘর নির্মাণের কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘জায়গাটি আমি কিনেছি। সরকারি অনুমোদনের জন্য আবেদন করা হয়েছে এবং পাইকগাছা উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার কাওসার সাহেব এর কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে ঘর নির্মাণ করছি।’ আবেদন বা তার স্বপক্ষে কোনো কাগজপত্র দেখতে চাইলে তিনি সৈয়দ সালাম উল্যাহ নামের ব্যক্তিকে মুঠোফোনে ধরিয়ে দেন। এ সময় সৈয়দ সালাম উল্যাহ নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় দিয়ে বলেন, ‘বিষয়টি আমি দেখছি। তাদের কাগজপত্র আমার কাছে রয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, উপজেলা সার্ভেয়ার কাওসার সাহেবকে জানিয়ে কাজ করানো হচ্ছে।

এ বিষয়ে সার্ভেয়ার কাওসার আলীর নিকট জানতে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না বা আমাকে কেউ কিছু বলেনি। আমি কপিলমুনি নায়েব সাহেবকে বলে দিচ্ছি তাদের ঘর নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখতে। এরপর কপিলমুনি ভূমি অফিসে বিষয়টি অবহিত করলে সংশ্লিষ্ট ভূমি কর্মকর্তা হাসমত আলী সরেজমিন গিয়ে কাজ বন্ধ করে দেন। তবে কাজ বন্ধের ঘন্টাখানেক পর প্রায় হাফডজন শ্রমিক নিয়ে ওইদিনই পুনরায় নির্মাণ কাজ শুরু করে। খবর পেয়ে দ্বিতীয় দফায় তহসীলদার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পুনরায় কাজ বন্ধ করে দেন। তবে গভীর রাতে নির্মাণ কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার পাঁয়তারা করছে বলে একাধিক সুত্রে জানাগেছে।

তবে কি কারণে স্থানীয় ভূমি কর্তার নির্দেশ অমান্য করে বেপরোয়া হয়ে সরকারি জায়গায় পাকাঘর নির্মাণ করার সাহস কোথা থেকে পাচ্ছে এমন প্রশ্ন এলাকাবাসীর।

এ বিষয়ে জানতে সদ্য যোগদানকারী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুঠোফোনে কয়েকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।