কোটচাঁদপুরে সুপ্রিম কোর্টের রায় উপেক্ষার অভিযোগ

এখন সময়: বুধবার, ৭ ডিসেম্বর , ২০২২ ০৯:০৩:১৭ am

কোটচাঁদপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি: সুপ্রিম কোটের চূড়ান্ত ডিক্রি উপেক্ষা করে জমি থেকে জোরপূর্বক উচ্ছেদ ও প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন হয়েছে।  রোববার দুপুরে কোটচাঁদপুর পৌর এলাকার গাবতলা পাড়ায় নালিশি জমিতে এ সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সর্ব্বোচ্চ আদালত থেকে ডিক্রি পাওয়া জমির মালিক আব্দুল খালেক লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। 

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার পিতা মৃত আবুল হোসেন ওয়ারেশ সূত্রে কোটচাঁদপুর ৪৬ নম্বর মৌজার ১৪০১ ও ২১৩০ খতিয়ানের ৭ দাগ থেকে ৭৮ শতক জমি প্রাপ্ত হন। কিন্তু বিবাদী জামেনা খাতুন ও তার ওয়ারেশগণ আমার পিতাকে জমির দখলে নিতে দেয়নি। সে কারণে আমার পিতা ১৯৮৯ সালের ৫ মার্চ দেওয়ানি কার্যবিধি মোতাবেক ঝিনাইদহ সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন। যার নম্বর ৭১। ওই মামলায়  আদালত ১৯৯৪ সালের ২৫ জানুয়ারি আবুল হোসেনের পক্ষে  ডিক্রি প্রদান করেন। বিবাদী জামেনা খাতুন এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন। মামলা পরিচালনা ক্ষেত্রে পিতার ত্রুটি থাকার করণে আপিলের প্রকৃত সুট ডিসমিস হয়। এ রায়ের বিরুদ্ধে পিতা হাইকোর্টে আপিল করেন। যার সিভিল রিভিউশন নম্বর ৪০৫। হাইকোর্ট ২০০৩ সালের ২৬ ফেব্রায়ারি আবুল হোসেনর পক্ষে রায় দেন। রায়ের বিরুদ্ধে জামেনা খাতুন মহামান্য সুপ্রিমকোর্টে আপিল করেন। আপিল নম্বর ৭১/২০০৪। সুপ্রিমকোর্টে নথি তলব ও জাস্টিফাই করে আবুল হোসেন পক্ষে রায় দেন।  এ রায়ও জামেনা খাতুনের মনপুত না হওয়ায় পুনরায় শুনানির জন্য সুপ্রিমকোর্টে রিভিউ পিটিশন করেন। পিটিশন নম্বর ১০৫/২১৫। অতঃপর প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে গঠিত  বেঞ্চ পিটিশনটি খারিজ করেন। পিতার অবর্তমানে চুড়ান্ত ডিক্রি পেতে ওয়ারেশগণ ঝিনাইদহ সিনিয়র সহকারী জজ আদালত মামলা করেন। এ প্রেক্ষিতে আদালত একজন সিনিয়র অ্যাডভোকেটকে কমিশন নিয়োগ করেন।  কমিশন উভয় পক্ষ ও স্থানীয় কাউন্সিলরের  উপস্থিতে নালিশি দাগ খতিয়ানের জরিপ পূর্বক ফিল্ড বুক ও স্কেস ম্যাপ চুড়ান্ত করে জমির অংশ বন্টন করে দেন। এত কিছুর পরও দখলীয় জমি থেকে উচ্ছেদ এর পাঁয়তারা করছে প্রতিপক্ষ। দেয়া হচ্ছে প্রকাশ্যে হত্যার হুমকি। যে কারণে সংবাদ সম্মেলনকারী এ পরিবারটি দারুন নিরাপত্তাহীনতার মাঝে দিন কাটাছেন বলে দাবি করেছেন।

আব্দুল খালেক উপস্থিত সাংবাদিকদের মাধ্যমে স্থানীয় পুলিশ ও সিভিল প্রশাসনের আশু সহযোগিতা কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে তার ভাই আব্দুল কুদ্দুস, আজিজুল হক, দাউদ হোসেন, সিরাজুল ইসলাম, ও শরিক আব্দুল মোতালেব উপস্থিত ছিলেন।