ঝিকরগাছায় গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার মামলা, আসামি ৭

এখন সময়: বুধবার, ৭ ডিসেম্বর , ২০২২ ১৫:৫৯:৩৮ pm

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঝিকরগাছার জামালপুর ( দোসাতিনা) গ্রামের মেয়ে মুন্নিকে কুপিয়ে ও মারপিট করে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে ৭ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। রোববার যশোর সদরের ঘোনা গ্রামের হাফিকুর রহমান বাদী হয়ে এ মামলা করেছেন। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আরমান হোসেন অভিযোগটি গ্রহণ করে এজাহার হিসেবে রেকর্ড করার আদেশ দিয়েছেন ঝিকরাগাছা থানার ওসিকে।

আসামিরা হলো, ভায়না গ্রামের ফরিদের ছেলে আসিফ, জামালপুর গ্রামের আমানত আলীর ছেলে রহমত, আলমগীর হোসেনের ছেলে উজ্জল, সিরাজুল ইসলামের ছেলে লিখন, তোফাজ্জেলের ছেলে জাহাঙ্গীর, আলতাফের ছেলে ফরিদ হোসেন ও জমির আলীর ছেলে আরমান।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, ৭ বছর আগে মুন্নির যশোর সদরের ঘোনা গ্রামের হাফিজুর রহমানের ছেলের সাথে বিয়ে হয়। এর আগে মুন্নির আসামি আসিফের সাথে বিয়ের কথাবার্তা হয়েছিল। কিন্তু বিয়ে হয়নি। আসিফ এতে মুন্নি ও তার পরিবারের উপর চরমভাবে ক্ষিপ্ত হয়। বিয়ের পর আসিফ নানা ভাবে মুন্নিকে উত্ত্যক্ত করতে থাকে। মুন্নি তার ছেলে জন্ম নিবন্ধন করতে তার পিতা বাড়ি আসেন। গত ১৮ সেপ্টেম্বর সকালে তার চাচাত ভাই আসামি রহমতকে সাথে নিয়ে তিনি ছেলের জন্ম নিবন্ধন করার উদ্দেশ্যে শিমুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের যাচ্ছিলেন। আসামি আসিফের সাথে রহমতের সুসম্পর্ক থাকায় বিষয়টি তাকে জানিয়ে দেয়। এ সংবাদ পেয়ে আসিফ ও তার লোকজন খাসখালি গ্রামের পাকা রাস্তার উপর অবস্থান নেয়। মুন্নি ও রহমত ঘটনাস্থলে পৌঁছালে মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে মুন্নিকে অপহরণের চেষ্টা করে। মুন্নি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে আসিফ মুন্নির মাথায় দা দিয়ে কোপ দেয়। মুন্নি পড়ে গেলে অন্য আসামিরা মারপিট ও তার গায়ে গহনা লুট করে। গুরুতর আহত মুন্নিকে প্রথমে যশোর পরে খুলনা সিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে মুন্নি অবস্থার অবনিত হওয়ায় ঢাকা নিউরো সাইন্সেস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা করে তিনি আদালতে এ মামলা করেছেন ।