ক্যান্সার নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই : ভারতের দুই চিকিৎসক

এখন সময়: বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি , ২০২৪, ০৪:১০:৩৮ পিএম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভারত বাংলাদেশে প্রতি ৮ জন পুরুষের মধ্যে একজন আর প্রতি ৭ জন নারীর মধ্যে একজন ক্যান্সারের মুখোমুখি হচ্ছে। এই ক্যান্সারে বাংলাদেশে প্রতি বছর এক লাখ লোক মারা গেলেও আক্রান্তদের প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ সুস্থ জীবনে ফিরে আসছে। ফলে এই ক্যান্সার নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। সচেতন আর সুচিকিৎসায় মাধ্যমে এই ক্যান্সার মোকাবেলা সম্ভব। ক্যান্সার চিকিৎসা এখন অনেকটাই সহজ ও সহজলোভ্য বিষয়। সারাবিশে^ই ক্যান্সারের চিকিৎসা একই। ক্যান্সার আক্রান্তদের মধ্যে ৭০ শতাংশ রোগীদের তামাকজাত দ্রব্যের মাধ্যমে আক্রান্ত হচ্ছে। ফলে সকল তামাকজাত দ্রব্য প্রত্যাহার সবাইকে আবশ্যক।

শনিবার রাতে যশোর প্রেস ক্লাবে ‘স্বাস্থ্য বিষয়ক আলোচনা সভায় এই তথ্য জানান ভারতের হাওড়ার স্বনামধন্য নারায়াণা সুপারস্পেশালিটি হসপিটালের দুইজন চিকিৎসক। চিকিৎসকরা হলেন ক্লিনিক্যাল ডিরেক্টর সিনিয়র কনসালটেন্ট ও এইচওডি রেডিয়েশন অনকোলজি ডা ঃ সুমন মল্লিক, সিনিয়র কনসালটেন্ট, কার্ডিয়াক সার্জারি আ্যাডান্ট ও পেডিয়াট্রিক ডাঃ দেবাশীষ দাস। হৃদরোগ ও ক্যান্সারে মানুষের মাঝে সচেতনা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এই আয়োজন করে ভারতের ব্যাঙ্গালুরুর স্বনামধন্য হৃদরোগ চিকিৎসক ডাঃ দেবী শেঠীর পরিচালনায় নারায়াণা সুপারস্পেশালিটি হসপিটালের হাওড়া শাখার আয়োজনে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ আব্দুল মজিদ, যশোর পৌর সভার প্যানেল মেয়র মোকসেমুল বারি অপু, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক, জেলা পূজা পরিষদের সভাপতি দিপাঙ্কর দাস রতন।

অনুষ্ঠানে নারায়ণা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের ৪৪ টি ডিপার্টমেন্ট থেকে দুটি ডিপার্টমেন্টের দুইজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. সুমন মল্লিক ও ডা. দেবাশীষ দাস উপস্থিত থেকে নারায়ানা হাসপাতালের চিকিৎসা বিষয়ক সুফল ও সফলতা নিয়ে কথা বলেন। হার্টের রোগীদের কার্ডিওলোজি, কার্ডিয়াক সার্জারি, বোন ম্যারো ট্রান্সপ্লান্ট, কিডনি ট্রান্সপ্লাটেশন,হার্ট ট্রান্সপ্লাটেশন, লিভার ট্রান্সপ্লান্ট, অর্থোপেডিক্স, নিউরোলজি, নেফ্রোলজি, ইউরোলজি, গাইনি, গ্যাসটোএন্ট্রোলজি, লিভার, ক্যান্সার, থাইরয়েড, মেডিসিন, রোবোটিক সার্জারি, ইএনটি সহ আরো অন্যান্য সকল রোগের সঠিক চিকিৎসার যাবতীয় পরামর্শ। সকল বিষয়ে নারায়ণা হেলথ এর স্বনামধন্য বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সিরিয়াল গ্রহণের ব্যবস্থাসহ চিকিৎসার যাবতীয় ব্যয় ও সময় সম্পর্কে অবগতকরণ । ভিসা ইনভাইটেশন লেটার এর ব্যবস্থাসহ মেডিকেল ভিসার যাবতীয় তথ্য প্রদান। রুগীর নারায়ণা হেলথ এর চিকিৎসা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যবলি প্রদান ও ব্যয়সমূহ। ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা প্রদান, ভিসা ফর্ম ফিল আপ সহায়তাসহ  নানা বিষয়ে কথা বলেন। প্রসঙ্গত, নারায়ানা  হাসপাতালটি  বিখ্যাত নারায়ণ স্বাস্থ্য গ্রুপের অংশ। ২০০০ সালে, বিখ্যাত কার্ডিয়াক সার্জন ডাঃ দেবী শেঠী দ্বারা প্রতিষ্ঠিত, এটি ভারতের নেতৃস্থানীয় স্বাস্থ্যসেবা গোষ্ঠীগুলির জন্য একটি হয়ে উঠেছে। ভারতের বেঙ্গালুরুতে সদর দপ্তর অবস্থিত, নারায়না হেলথ  উত্তর, পশ্চিম ও মধ্য ভারতের অন্যতম প্রধান স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।