যশোরে সড়কে ঝরলো শিশুসহ ৩ প্রাণ

এখন সময়: মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই , ২০২৪, ০১:৩০:৪৬ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজনের মৃত্যু হয়েছে।  মঙ্গলবার ওই তিনজনের মৃত্যু হয়।

দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণকারীরা হলেন, সদর উপজেলা চাঁচড়া ইউনিয়নের চাঁচড়া গ্রামের পশ্চিমপাড়ার চা দোকানী কবির হোসেনের ছেলে আজমাইন (৭), বড় মেঘলা গ্রামের বাসিন্দা ইউনুস আলী (৭৫) ও ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজার ইউনিয়নের সুবর্ণসারা গ্রামের বাসিন্দা বীরেন ঘোষ (৬০)।

তাদের স্বজনেরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সকালে শংকরপুর বাস টার্মিনাল থেকে পিতা কবিরের বাইসাইকেলে চড়ে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলো শিশু আজমাইন। এ সময় রুপসা-গড়াই পরিবহনের কাউন্টারের সামনে যেতেই একটি ট্রাক (যশোর ট -১১-২১৬৩) পিতা-পুত্রকে বহনকারী সাইকেলে ধাক্কা দেয়। দুর্ঘটনায় কবির রাস্তার পাশে পড়লেও তার ছেলে বাইসাইকেল ছিটকে রাস্তার ওপর পড়ে। তখন তার শরীরের ওপর দিয়ে ট্রাকের চাকা চলে যায়। এতে ঘটনাস্থলে মারা যায় আজমাইন। পরে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ট্রাক চালক ঝিকরগাছা উপজেলার নাভারণ বেলেমাঠ গ্রামের রাসেল উদ্দিন (৩৫), সহকারী আমির হামজাকে (১৬) আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

একই দিন বিকেলে যশোর-ঝিনাইদহ মহাসড়কের বাংলালিংক টাওয়ারের কাছে বাসের ধাক্কায় বীরেন ঘোষ  মারা যান। নিহতের ভাইয়ের ছেলে প্রলয় ঘোষ জানান, বীরেন ঘোষ বাইসাইকেল চালিয়ে বাজার করতে যাচ্ছিলেন। এ সময় দ্রুত গতির একটি বাস তাকে ধাক্কা দিলে ছিটকে পড়ে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। জরুরি বিভাগের ইনচার্জ ডা. আব্দুর রশিদ জানান, হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই তিনি মারা যান।

এদিকে, রোবাবর বিকেলে সদরের চাঁচড়া বড় মেঘলা গ্রামের ইউনুস আলী নতুনহাট বাজারে আসেন। রাস্তা পার হওয়ার সময় একটি মোটরসাইকেল তাকে ধাক্কা দেয়। দুর্ঘটনায় তিনি গুরুতর আহত হলে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ইউনুস আলী।