মাগুরায় পুলিশের এডিসি লাবনী ও তার সাবেক দেহরক্ষী আকাশের লাশ উদ্ধার

এখন সময়: বুধবার, ৫ অক্টোবর , ২০২২ ২২:০০:১৮ pm

মাগুরা প্রতিনিধি: মাগুরায় খুলনা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) লাবনী আক্তার (৪০) ও তার এক সময়ের দেহরক্ষী পুলিশ সদস্য মাহামুদুল হাসান আকাশ (২২) এর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তারা আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা পুলিশের।

বৃহস্পতিবার সকালে মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার সারঙ্গদিয়া গ্রামের নানাবাড়ি থেকে লাবনীর লাশ উদ্ধার করা হয়; কাছাকাছি সময়ে মাগুরা সদরে ব্যারাকের ছাদে পাওয়া যায় মাহামুদুলের গুলিবিদ্ধ লাশ।

লাবনীর খালা ঝর্না বেগম জানান, খন্দকার লাবনী আক্তার শ্রীপুর উপজেলার বড়ালিদাহ গ্রামের শফিুকল আজমের মেয়ে। এডিসি হিসেবে খুলনা কেএমপিতে কর্মরত ছিলেন। শ^শুর বাড়ি ফরিদপুর শহরে। তার স্বামী আব্দুল্লাহ তারেক একজন বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী পরিচালক হিসেবে কর্মরত। স্বামী দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকায় বর্তমানে ভারতের কলকাতায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সংসারে দুই মেয়েকে নিয়ে লাবনী খুলনা বসবাস করছেন। গত ১৮ জুলাই সোমবার এক সপ্তাহের ছুটিতে তিনি তার নানাবাড়ি মাগুরা জেলার শ্রীপুর উপজেলার সারঙ্গদিয়া গ্রামে বেড়াতে যান। বুধবার গভীর রাতে সারঙ্গদিয়া গ্রামে একটি কক্ষে গলায় ওড়না পেচিয়ে ফ্যানের সাথে আত্মহত্যা করেছেন বলে আমরা শুনেছি। ব্যক্তিগত জীবনে লাবনীর সাথে কারো কোন শত্রুতা নেই বলে তিনি উল্লেখ করেন। কারো সাথে কোন সম্পর্ক আছে কিনা আমার জানা নেই।

অপরদিকে, বৃহস্পতিবার সকালে মাগুরা পুলিশ লাইনে নিজের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে মাহামুদুল হাসান আকাশ (২২) নামে এক পুলিশ সদস্য আত্মহত্যা করেছেন। নিহত মাহামুদুল হাসান কুষ্টিয়া জেলায় দৌলতপুর উপজেলার কমলাপুর গ্রামের এজাজুল হকের ছেলে।

নিহত মাহামুদুল হাসানের দুলাভাই হেলাল উদ্দিন বলেন, গত দেড় মাস হলো মাহামুদুল খুলনা থেকে মাগুরায় বদলি হয়ে এসেছে। এর আগে সে খুলনায় কেএমপিতে কর্মরত ছিল। সেখানে মাহামুদুল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার লাবনীর দেহরক্ষী হিসেবে কর্মরত ছিল। খুলনাতে ১ বছর চাকুরি করার পর মাহামুদুল দেড় মাস মাগুরায় এসেছে। ব্যক্তিগত জীবনে তার সাথে অন্য কারো সম্পর্ক আছে কিনা আমার জানা নেই। তবে তার পরিবার ও আমি মাঝে মাঝে ফোন করলে মাগুরাতে তার চাকরি ভালো লাগছে না, অন্য কোথাও সে যেতে চায় বলে উল্লেখ করতো।

এ ঘটনায় উভয় পরিবারের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মাগুরা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম জানান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার লাবনী (৪০) নামে এক পুলিশ কর্মকর্তা বৃহস্পতিবার ভোরে মাগুরা শ্রীপুর উপজেলার সারঙ্গদিয়া গ্রামে আত্মহত্যা করেছেন। লাবনী ৩০তম বিসিএস এর একজন সদস্য। তিনি এডিসি হিসেবে খুলনা কেএমপিতে কর্মরত ছিলেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত। লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত চলছে।

অপরদিকে, বৃহস্পতিবার সকালে মাগুরা পুলিশ লাইনে আমাদের একজন পুলিশ সদস্য মাহামুদুল হাসান আকাশ (২২) নিজের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। মাহামুদুল রাতে ডিউটি শেষে নিজের পিস্তলটি জমা না দিয়ে সকালে পুলিশ লাইনের ছাদে চলে যান। তারপর নিজের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে আত্মহত্যা করেন। পূর্বে মাহামুদুল হাসান খুলনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদমর্যাদার লাবনী আক্তারের দেহরক্ষী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।  লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে ঘটনাটি তদন্ত করে আইনি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে।