কপাল খুললো যশোর বোর্ড স্কুল এন্ড কলেজের ৩৪ শিক্ষক কর্মচারীর

এখন সময়: বুধবার, ৩০ নভেম্বর , ২০২২ ২৩:৪২:০৪ pm

মিরাজুল কবীর টিটো:  সাড়ে চার বছর পর কপাল খুলেছে যশোর শিক্ষা বোর্ড সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষকদের  দুঃচিন্তা দুর হয়েছে। অবশেষে ৩৪জন শিক্ষক, কর্মচারী আত্মীকরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। খুব তাড়াতাড়ি এসব শিক্ষক-কর্মচারী সরকারি নিয়মানুয়ায়ী বেতন পাবেন। আগামী সেপ্টেম্বর মাস থেকে সরকারি নিয়মেই শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি ও বেতন নেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন অধ্যক্ষ সহযোগী অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম।

 যশোর শিক্ষা বোর্ডের উদ্যোগে ২০০৭ সালে শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল এন্ড কলেজ স্থাপিত হয়। তখন বেসরকারিভাবে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ দেয়া হয়। ২০১৭ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর স্কুলটি সরকারি করণ করে শিক্ষামন্ত্রণালয়। কিন্তু বেসরকারি নিয়মে শিক্ষার্থীদের টিউশনফি ও বেতন নেয়া হচ্ছিল। পাশাপাশি স্কুলের শিক্ষার্থীদের বেতন থেকে আয় করা টাকা থেকে শিক্ষকরা বেতন পাচ্ছিলেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি আত্মীকরণ না হওয়ায় শিক্ষার্থীদের বেসরকারি নিয়মে বেতন ও টিউশন ফি দিয়ে লেখাপড়া করতে হচ্ছে। অবশেষে শিক্ষকদের স্থায়ী হওয়ার চিন্তা দূর হয়েছে। এ বছরের ১৬ আগস্ট বুধবার ৩৪ জন শিক্ষক,কর্মচারীকে আত্মীকরণ করায় তারা ১৭ আগস্ট সরকারি নিয়ম অনুযায়ী যোগদান করেছেন। তারা  অন্যান্য সরকারি কর্মচারীদের ন্যায় বেতন পাবেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২৭ জন শিক্ষক,কর্মচারী জাতীয়করণকৃত শিক্ষক ও শিক্ষককর্মচারী আত্মীকরণ বিধিমালা ২০০০ এবং জাতীয়করণকৃত উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক, অশিক্ষক কর্মচারী (মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অফিদফতর) জাতীয়করণ বিধিমালা-১৯৮৩ (সংশোধনী ১৯৯৪-১৯৯৫) অনুযায়ী তাদের নামের পূর্বে বর্ণিত বর্ণিত শর্ত মোতাবেক সরকারিকরণে তারিখ ২০১৭ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর এহডক ভিত্তিতে নিয়োগ পূর্ব পদায়ণ করা হয়। ১৬ আগস্ট সোমবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের চিঠি পাওয়ার পর বোর্ড স্কুলে ৩৪জন শিক্ষককর্মচারী সরকারি নিয়মে যোগদান করেন। এরপর তারা শিক্ষামন্ত্রণালয় থেকে একটি কোর্ড নম্বর পাওয়ার পর তারা বেতন তুলতে পারবেন বলে জানিয়েছে অধ্যক্ষ সহযোগী অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম শফিকুল ইসলাম। তিনি জানান সেপ্টেম্বর মাসে শিক্ষামন্ত্রণায় থেকে সভা করে গভর্ণিং বডি বাতিল করে দেবে। কমিটি বাতিল হয়ে যাওয়ার পর সকল ক্ষমতা সরকারি নিয়ম অনুযায়ী  অধ্যক্ষের উপর দেয়া হবে। তারপর থেকে সরকারি নিয়মে টিউশন ফি ও বেতন দিয়ে শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া করবে বোর্ড স্কুল এন্ড কলেজে।