আলমডাঙ্গায় ঐতিহ্যবাহী গ্রাম প্রধানী অর্পণ অনুষ্ঠান

এখন সময়: সোমবার, ৩০ জানুয়ারি , ২০২৩ ০২:০৬:১৮ am

আলমডাঙ্গা অফিস: গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী মাতব্বর প্রথা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রায় বিলুপ্ত হতে চলেছে। কিন্তু আলমডাঙ্গা ও তার আশপাশের গ্রাম গুলোতে এ প্রথা এখনো বিদ্যমান এবং এই প্রথার আদলে বর্তমান সরকারের গ্রাম আদালত পরিচালিত হয়ে থাকে। পল্লী কবি জসিমউদ্দিনের সুজন বাদিয়ার ঘাট কাব্যগ্রন্থে, মো. শহিদুলাহ কায়সারের সংসপ্তক নাটক, আমজাদ হোসেনের নয়নমনি, গোলাপী এখন ট্রেনে চলচ্চিত্রসহ সাহিত্য, নাটক ও পুরাতন সংস্কৃতির অনেকটা অংশ জুড়ে আছে এই মোড়ল বা মাতব্বর চরিত্র। সেই পুরানো ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় শনিবার আলমডাঙ্গা বেলগাছী ইউনিয়ন মাতব্বর সমিতির উদ্যোগে ৫ গ্রামের গ্রাম প্রধানদের উপস্থিতিতে গ্রাম মাতবরের দায়িত্ব পেলেন ফরিদপুর গ্রামের মৃত কালাচাঁদ মন্ডলের ছেলে আকতারুল হক। যেহেতু পিতা এলাকার একজন সনামধন্য মন্ডল ছিলেন সেক্ষেত্রে পিতার মৃত্যুর পর উত্তরাধিকার সুত্রে শনিবার  দুপুরে  ১০ মণ মাংস দিয়ে ৫ গ্রামের গ্রামের মন্ডল ও এলাকার মানুষকে খাওয়ানোর মাধ্যমে প্রধানের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

খানার পূর্বে এলাকার বিশিষ্ট মন্ডল এমদাদুল হক জান্টুর সভাপতিত্বে ফরিদপুর গ্রামের বাগান পাড়ায় গ্রাম প্রধানী অর্পণ অনুষ্ঠান উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মন্ডল সমিতির সভাপতি সাবেক পৌরসভার চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা এম সবেদ আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন বণিক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক বর্তমান মন্ডল সমিতির সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম পকু, সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের আলমডাঙ্গা শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক সিরাজুল ইসলাম, সাবেক উপসহকারী প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা শামসুজ্জোহা সাবু, বেলগাছী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মন্ডল সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন সোনাহার।

ব্যাংকার জগলুল আরেফিনের উপস্থাপনায় এ সময় বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাব সভাপতি শাহআলম মন্টু, রেজাউর রহিম, রিকাত আলী, সেকেন্দার আলী, সিতাব আলী, আঃ হাকিম ও মীর হাসান পল্টু।

আলোচনাসভা শেষে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আকতারুল হক’কে টুপি ও পাগড়ি পরিয়ে মাতবরের স্বীকৃতি প্রদান করেন ও শপথ বাক্য পাঠ করান। শপথবাক্য পাঠ শেষে নুতন মাতব্বর আনোয়ার হোসেন উপস্থিত সকলের নিকট দোয়া প্রার্থনা করেন।