রোজার আগে কমলো চাল, তেল, চিনি ও খেজুরের শুল্ক

এখন সময়: শনিবার, ২ মার্চ , ২০২৪, ০৮:২৩:১৪ পিএম

 

স্পন্দন ডেস্ক: রোজা সামনে রেখে বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাল, চিনি, তেল ও খেজুরের আমদানি শুল্ক কমানো হয়েছে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড বৃহস্পতিবার পাঁচটি আলাদা প্রজ্ঞাপনে এসব পণ্যের শুল্ক বিভিন্ন পর্যায়ে কমানোর সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।

সেদ্ধ ও আতপ  চালের ক্ষেত্রে আমদানি শুল্ক পুরোপুরি তুলে নেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক বা রেগুলেটরি ডিউটি ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে।

আগামী ১৫ মে পর্যন্ত এ সুবিধা পাবেন চাল আমদানিকারকরা। শর্ত হল, আমদানির প্রতিটি চালানের বিপরীতে খাদ্য মন্ত্রণালয় মনোনীত যুগ্ম সচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তার লিখিত অনুমোদন নিতে হবে।

স্থানীয় পর্যায়ে পরিশোধিত সয়াবিন ও পাম তেলের উৎপাদন ও ব্যবসা পর্যায়ে ভ্যাট পুরোপুরি প্রত্যাহার করা হয়েছে। আর বিদেশ থেকে পরিশোধিত ও অপরিশোধিত সয়াবিন তেল ও পাম তেল আমদানিতে ভ্যাট ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ করা হয়েছে। তেলে এ দুই সুবিধা ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত বহাল থাকবে।

রোজা সামনে রেখে খেজুরের আমদানি শুল্ক ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশ করা হয়েছে। আমদানিকারকরা ৩০ মার্চ পর্যন্ত এ সুবিধা পাবেন।

পরিশোধিত ও অপরিশোধিত চিনি আমদানির ক্ষেত্রেও শুল্ক কমানো হয়েছে। প্রতি টন অপরিশোধিত চিনি আমদানিতে শুল্ক দেড় হাজার টাকা থেকে কমিয়ে এক হাজার টাকা করা হয়েছে। আর পরিশোধিত চিনিতে আমদানিতে প্রতি টনে আমদানি শুল্ক তিন হাজার টাকা থেকে কমিয়ে করা হয়েছে দুই হাজার টাকা। চিনি আমদানিতে এ সুবিধা পাওয়া যাবে ৩১ মার্চ পর্যন্ত।

গত ২৯ জানুয়ারি মন্ত্রিসভার বৈঠকে রোজা সামনে রেখে ভোজ্যতেল, চিনি, খেজুর ও চালের ওপর শুল্ক কমানোর নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় শুল্ক কমানোর জন্য এনবিআরকে সুপারিশ করে। সেই ধারাবাহিকতায় এখন পরিবর্তিত শুল্কহার জানিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করল এনবিআর।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, এসব সিদ্ধান্ত অবিলম্বে কার্যকর হবে।