ধুমধামে যশোরে যৌতুকবিহীন বিয়ে হলো ৫০ জোড়া তরুণ-তরুণীর

এখন সময়: শনিবার, ১৫ জুন , ২০২৪, ০৬:২১:৫০ এম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরে মহাধুমধামে বিনা যৌতুকে বিয়ে হলো ৫০ জোড়া তরুণ-তরুণীর। যাদের কাছে এমন আয়োজন ছিলো স্বপ্নের মতো, তাদের সেই স্বপ্নই পূরণ করলো শারজাহ চ্যারিটি ইন্টারন্যাশনাল ফাউন্ডেশন। শনিবার দুপুরে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গাজীরদরগাহ কুয়েত ইসলামিক ইয়াতিম কমপ্লেক্সে জাঁকজমকপূর্ণ  আয়োজনের মধ্য দিয়ে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন এতিম ও অস্বচ্ছল পরিবারের তরুণ-তরুণীরা। শুধু তাই নয়, বিয়েতে প্রত্যেক দম্পতি পেয়েছেন ঘর সাজানোর উপহার। পাগড়ি আর লাল শাড়ি পরে অর্ধশত বর-কনে আসেন বিবাহ স্থলে। ইসলামিক শরিয়া অনুযায়ী বিয়ে বন্ধনের পর নতুন বউ নিয়ে হাসিমুখে ফিরে যান নিজ নিজ গন্তব্যে। খাওয়া-দাওয়া থেকে শুরু করে জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনের কোনো কমতি ছিলো না।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, খুলনা বিভাগের অসহায়, এতিম ও অর্থ সংকটে বিবাহ হচ্ছে না এমন ৫০ জোড়া পাত্র-পাত্রীকে এদিন বিয়ে দেয়া হয়েছে। বিয়ে অনুষ্ঠানে কর্মসংস্থানের জন্য বরকে একটি করে ভ্যান গাড়ি ও কনেকে সেলাই মেশিন দেয়া হয়েছে। একইসাথে সংসারের জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দেয়া হয়েছে নবদম্পতিকে। ব্যতিক্রমী এই গণবিবাহের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন, কুয়েত ইসলামিক ইয়াতিম কমপ্লেক্স গাজীরদরগাহ ঝিকরগাছার পরিচালক মুফতি নাসিরুল্লাহ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যশোরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবরাউল হাছান মজুমদার।

কয়েকজন বর ও কনে জানান, নিজেদের বিয়ের এমন অনুষ্ঠানের স্বপ্ন দেখারও সাহস পায়নি আমরা। এটা আনন্দও কম নয়। নিজেদের নতুন জীবনের পথচলা নিয়ে সুন্দর জীবনের স্বপ্ন দেখছেন তারা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বর ও কনেদের পরিবারের সদস্যরা। এমন ধুমধাম বিয়ের আয়োজন কল্পনাও করেননি তারা।

আয়োজক কমিটির সদস্য কে এম মিকাইল হোসেন বলেন, ‘যৌতুক বিহিন বিবাহ প্রথা চালু করার উদ্যেশ্যে এমন আয়োজন করা হয়েছে। যেন যৌতুকের বলি হতে না হয় কোনো নারীর। পাশাপাশি গরিব অসহায় পরিবারগুলো ধুমধাম করে তাদের সন্তানদের বিয়ে দিতে পারে তা নিশ্চিত করে সব আয়োজন করা হয়েছে। বিয়ের পাশাপাশি নগদ টাকা, সেলাই মেশিন, ভ্যানগাড়ি, রান্নার চুলাসহ সংসার সাজানোর সরঞ্জামও দিয়েছে সংস্থাটি।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবরাউল হাছান মজুমদার বলেন, ‘যৌতুক একটি সামাজিক ব্যধি। সমাজ থেকে যৌতুক উচ্ছেদের সামাজিক আন্দোলনের সূচনা করতে হবে। যৌতুকমুক্ত সমাজ গড়ে তুলতে হবে। ইসলামের প্রকৃত আদর্শিক শিক্ষার মাধ্যমে সমাজকে কলুষমুক্ত করতে হবে। যৌতুকমুক্ত সমাজ গঠনে নাগরিক সমাজের অংশগ্রহণ জোরদার করার আহ্বান জানান তিনি।’