নড়াইলে প্রবীণদের ক্রিকেট ও ফুটবল খেলায় মাতলো তিন গ্রাম

এখন সময়: শনিবার, ২০ জুলাই , ২০২৪, ০৩:১৩:৩২ এম

ফরহাদ খান, নড়াইল : ব্যতিক্রমী ক্রিকেট ও ফুটবল টুর্নামেন্টে অংশ নিয়ে নড়াইলের তিন গ্রামের বয়োবৃদ্ধরা স্থানীয়দের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করে নিয়েছেন। এলাকার তরুণ ও যুবকেরা টুর্নামেন্টটির আয়োজন করে। নড়াইল সদরের ভদ্রবিলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ছিল এই আয়োজন।
আয়োজক সূত্র জানায়, তথ্য প্রযুক্তি ও স্মার্ট মোবাইল ফোনে তরুণদের আসক্তির এই সময়ে প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ এবং সম্মান অটুট রাখতে ব্যতিক্রমী এই আয়োজন। এই আয়োজনে অংশ নিয়ে প্রবীণ ব্যক্তিরা মাদকমুক্ত তরুণ ও যুবসমাজ গড়তে গ্রামবাসীকে উদ্বুদ্ধ করেন। টুর্নামেন্টের বেশির ভাগ খেলোয়াড় ছিলেন ৬০ থেকে ৭৫ বছরের।
সূত্রমতে, ঈদের দ্বিতীয় দিন বিকেল ৪টা থেকে খেলা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও তার আগেই কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয় মাঠরে চারদিক। এমনকি বিদ্যালয়ের ছাদে বসেও খেলা উপভোগ করেন অনেকে। দর্শকদের মধ্যে নারী ও শিশু-কিশোরদের উপস্থিতিও ছিল লক্ষণীয়। ব্যতিক্রমী এ খেলা দেখতে পেরে খুশি ভদ্রবিলা, পলইডাঙ্গা ও মহারাগসহ আশপাশের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষ।
ভদ্রবিলা এলাকার মিনারা পারভীন বলেন, বয়স্কদের ব্যতিক্রমী ক্রিকেট ও ফুটবল খেলা ঈদের সময় আমাদের বাড়তি আনন্দ দিয়েছে। সুমি নামে আরেক নারী বলেন, প্রবীণদের এ ধরণের খেলা আগে কখনো দেখিনি। ঈদের সময় পরিবার-পরিজন নিয়ে খেলা দেখতে খুব ভালো লাগছে।
রেজাউল শেখ নামে এক দর্শক বলেন, ভদ্রবিলা মাঠে খেলা দেখার জন্য দুর-দুরান্ত থেকে অনেক দর্শক এসেছেন। এ ধরণের আয়োজন করার জন্য এলাকার যুবসমাজকে ধন্যবাদ জানাই।
বয়োবৃদ্ধ খেলোয়াড়রা জানান, ব্যতিক্রমী ক্রিকেট ও ফুটবল খেলায় অংশগ্রহণের মধ্যে দিয়ে তরুণ প্রজন্ম তথা গ্রামবাসীর সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করে নিয়েছেন তারা। বয়সের ভারে ঠিকমত বল, ব্যাট ও ফিল্ডিং করতে না পারলেও অনেক আনন্দ পেয়েছেন। গ্রামবাসীদেরও আনন্দ দেয়ার চেষ্টা করেছেন। সাত ওভারের ক্রিকেট এবং ৩০ মিনিটের ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
খেলায় অংশগ্রহণকারী দুই দলের মাঝে ট্রফি প্রদান ছাড়াও সবাইকে পুরস্কৃত করা হয়। প্রতিবছরই ঈদের সময়ে তাদের এ ধরণের ব্যতিক্রমী খেলার আয়োজন অব্যাহত থাকার কথা জানিয়েছেন তরুণ ও যুব প্রজন্মের আয়োজকরা।
খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, ভদ্রবিলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সজিব মোল্যা, খেলার আয়োজক কাজী রকিব উদ্দিন সেন্টু, খায়রুজ্জামান ফকির, জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সহ-সাধারণ সম্পাদক বাবুল মোল্যা, ইউপি সদস্য রেজাউল করিমসহ অনেকে।