শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানার মোবারকগঞ্জ ও দর্শনা কেরুজ চিনিকল পরিদর্শন

এখন সময়: শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর , ২০২২ ২২:৩৭:১৯ pm

স্পন্দন ডেস্ক : শনিবার শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ মোবারকগঞ্জ সুগার মিল ও চুয়াডাঙ্গার দর্শনা কেরুজ চিনিকল পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সিবিএ নেতাদের সাথে মতবিনিময় করেন।

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি জানান, শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ মোবারকগঞ্জ সুগার মিল পরিদর্শন করেন। তিনি শনিবার সকাল ৯ টায় সুগার মিলে পৌঁছানোর পর মিলের কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। এরপর মিল গেস্ট হাউজ চত্বরে বৃক্ষ রোপণ শেষে মিল কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসন ও সিবিএ নেতাদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। শিল্প সচিব মহোদয়ের সফরসঙ্গী হিসাবে আরো উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান অপু ও বৃটিশ আমেরিকা বাংলাদেশ টোবাকো বাংলাদেশের চেয়ারম্যান গোলাম মইন উদ্দিন।

মোবারকগঞ্জ সুগার মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাকিব উদ্দিন খান জানান, শনিবার শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা মোবারকগঞ্জ সুগার মিল ও দর্শনা কেরু এন্ড কোং মিল পরিদর্শনের অংশ হিসাবে সকাল ৯ টায় প্রথম পরিদর্শনে মিলে আসেন। পরে তিনিসহ ঝিনাইদহ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) রাজিবুল ইসলাম খান এবং কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া জেরিন তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এরপর শিল্প সচিব মিলের গেষ্ট হাউজ চত্বরের ফুল বাগানে গাছ লাগিয়ে বৃক্ষ রোপণ উদ্বোধন করে। এ সময় তার সাথে সফরে আসা বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান অপু ও বৃটিশ আমেরিকা বাংলাদেশ টোবাকো বাংলাদেশের চেয়ারম্যান গোলাম মইন উদ্দিন মহোদ্বয়গনও বৃক্ষ রোপণ করেন। শেষে মিলের গেষ্ট হাউজে মিল কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসন ও সিবিএ নেতাদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এ সময় মোচিক মিলের এমডি রাকিব উদ্দিন খান অত্র মিলের বর্তমান অবস্থা তুলে ধরাসহ সার্বিক পরিস্থিতি অবহিত করেন। মতবিনিময় শেষে অত্র মিলের সিবিএ সভাপতি গোলাম রসুল শিল্প সচিব মহোদ্বয়কে মিলের শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা স্বরূপ একটি ক্রেষ্ট উপহার দেন।

দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি জানান, আখের উৎপাদন বৃদ্ধিতে আখের বিক্রি মূল্য মণপ্রতি ১৮০টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার। মূল্য বৃদ্ধির ফলে আখচাষিদের আগ্রহ ফিরবে। এতে দেশের চিনি শিল্প ঘুরে দাঁড়াবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা। শনিবার দুপুরে তিনি চুয়াডাঙ্গার দর্শনা কেরুজ চিনিকল পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন।

এ সময় আখের পাইল প্রকল্প, কেরু চিনিকল ও  ডিস্টিলারি পরিদর্শন করেন শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব জাকিয়া সুলতানা ও বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন (বিএসএফআইসি) এর চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান অপু বেলা ১১টার দিকে চিনিকলের আড়িয়া কৃষি খামারের মাঠে বিএসএফআইসি ও বিএটি বাংলাদেশের যৌথ প্রচেষ্টায় আখের উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প পরিদর্শন করেন। পরে জৈব সারকারখানা, চিনি মিল, ডিস্টিলারি বিভাগসহ অঙ্গপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেন তারা। এ সময় ডিস্টিলারিতে বৃক্ষ রোপণ করেন অতিথিরা। পরির্দশনকালে বাংলাদেশ সরকারের শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব জাকিয়া সুলতানা আরও বলেন, “আখের জাত প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে গুণগতমানসম্পন্ন আখ উৎপাদনে সহায়তা এবং উদ্বুদ্ধকরণে বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করর্পোরেশন এর সঙ্গে বিএটি বাংলাদেশ একযোগে কাজ করে চলেছে। সম্ভাবনাময় এই শিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে আমরা বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি যার মধ্যে এই টেকসই মডেল প্রকল্পটি অন্যতম। এ ধরনের উদ্যোগ দেশজুড়ে সম্প্রসারণ করা গেলে দেশের প্রান্তিক চাষি আখ চাষে উদ্বুদ্ধ হবে এবং ফলস্বরূপ চিনি কলগুলোতে পুনরায় গতির সঞ্চার হবে বলে আমার বিশ্বাস।

সচিব বলেন, বাংলাদেশের সামগ্রীক ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা অর্জনের জন্য সরকার ও বেসরকারি খাতের সমন্বয় সাধন ও নতুন নতুন উন্নয়নমূলক উদ্যোগ গ্রহণের বিকল্প নেই। সফল এই প্রকল্প থেকে প্রাপ্ত জ্ঞান কৃষকদের মাঝে ছড়িয়ে দিয়ে আখের উৎপাদন বৃদ্ধি করতে পারলে অদূর ভবিষ্যতে আমদানি নির্ভরতা কাটিয়ে চিনি শিল্প সগৌরবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে সক্ষম হবে।

বিএসএফআইসির চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান অপু বলেন, চিনির উপর আমদানি নির্ভরতা কমাতে টেকসই কৃষি ব্যবস্থার কোনো বিকল্প নেই। বিএটি বাংলাদেশ এর মাধ্যমে করা এই প্রকল্পে আমরা যে সফলতা পেয়েছি তা আমরা কৃষকদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে চাই, যাতে করে তারা সামনের দিনগুলোতে আখ চাষে আরো উদ্বুদ্ধ হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক মোহম্মদ আমিনুল ইসলাম খান, চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচিলক মোশারফ হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু তারেক, দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সানজিদা বেগম, বিএটি এর হেড অফ লিগ্যাল এন্ড এক্সটার্নাল অ্যাফেয়ার্স মুবিনা আসাফ, হেড অফ এক্সটার্নাল এফেয়ার্স শেখ শাবাব আহমেদ, হেড অফ পাবলিক এ্যাফেয়ার্স ও কো¤পানি সেক্রেটারি আজিজুর রহমান এফসিএস, ডিভিশনাল লীফ ম্যানেজার ভেলায়েত আলী আহসান প্রমুখ।