এইচএসসির বাংলা প্রশ্নে ভুল

জড়িতদের ৫ কর্মদিবসের মধ্যে শোকজের জবাব দেয়ার নির্দেশ

এখন সময়: বুধবার, ৩০ নভেম্বর , ২০২২ ২২:৫৯:৪৫ pm

 

মিরাজুল কবীর টিটো: চলমান এইচএসসি পরীক্ষায় চট্টগ্রাম বোর্ডের বাংলা ১ম পত্রের প্রশ্নে বানান ভুলের ঘটনায় জড়িতদের পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে। প্রশ্ন প্রণয়নকারী ও চার মডারেটরকে ওই সময়ের মধ্যে শোকজের জবাব দিতে বলেছে যশোর শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার বোর্ড থেকে তাদেরকে প্রশ্নপত্রে বানান ভুলের কারণ সম্পর্কে বাখ্যা চাওয়া হয়েছে। শোকজের চিঠি প্রশ্ন প্রণয়নকারীসহ চার মডারেটরের মেইলে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর মাধব চন্দ্র রুদ্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, প্রশ্নে বানান ভুলের ঘটনায় যশোর শিক্ষা বোর্ডের প্রশ্ন প্রণয়নকারী-মাস্টার ট্রেইনার ও কুষ্টিয়া দৌতপুর মহিষাকুন্ডু কলেজের সহকারী অধ্যাপক রুবিনা পারভীনকে ৫ কর্মদিবসের মধ্যে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে। তার পাশাপাশি চার মডারেটরÑ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা আদর্শ কলেজের সহকারী অধ্যাপক রেজাউল করিম, নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের সহকারী অধ্যাপক শ্যামল কুমার ঘোষ, নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের সহযোগী অধ্যাপক সৈয়দ তাজউদ্দিন শাওন ও সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজের সহযোগী অধ্যাপক শফিকুর রহমানকে প্রশ্নে বানান ভুলের ঘটনায় শোকজ করা হয়েছে। তাদেরকেও ওই সময়ের মধ্যে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

যশোর বোর্ড সূত্র জানায়, গত ৬ নভেম্বর অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের বাংলা ১ম পত্রের প্রশ্নে ৪১টি ভুল ধরা পড়ে। সংশ্লিষ্টরা প্রশ্ন প্রণয়ণকারী ও মডারেটর শনাক্ত করে আন্তঃ শিক্ষা বোর্ডকে জানায়। আন্তঃ শিক্ষা বোর্ড থেকে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বুধবার যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানকে চিঠি দেয়া হয়। চিঠি পাওয়ার পর চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আহসান হাবীব প্রশ্ন প্রণয়ণকারী ও মডারেটরদের শোকজ করার জন্য দায়িত্ব দেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর মাধব চন্দ্রকে। বৃহস্পতিবার তিনি একজন প্রশ্ন প্রণয়ণকারী ও চারজন মডারেটরকে শোকজের চিঠি দেন।

এর আগে ঢাকা বোর্ডের বাংলা ১ম পত্রের প্রশ্নে ‘সাম্প্রদায়িক উস্কানির’ কারণে ওই চারজন মডারেটর অভিযুক্ত হন। ওই ঘটনা তদন্তে যশোর শিক্ষা বোর্ড তদন্ত কমিটি গঠন করে। ১০ নভেম্বর বোর্ডের তদন্ত কমিটি তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। গত বুধবার তদন্ত কমিটি তদন্তের প্রতিবেদন চেয়ারম্যানের কাছে জমা দিয়েছে। প্রতিবেদনে  তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়েছে জানিয়েছে তদন্ত কমিটি।

এ ব্যাপারে যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আহসান হাবীব জানান, প্রশ্ন প্রণয়ণকারী ও মডারেটররা শোকজের জবাব দেয়ার পর সেটি পর্যালোচনা করা হবে। সেই সাথে তদন্ত কমিটির গঠন করা হবে। তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন পাওয়ার পর নিয়ামানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।