পাইকগাছায় তীব্র শীতেও ফসলের মাঠে নারী শ্রমিকদের জীবন সংগ্রাম

এখন সময়: শনিবার, ২ মার্চ , ২০২৪, ০৬:৫৭:৩৪ পিএম

 

প্রকাশ ঘোষ বিধান, পাইকগাছা: পাইকগাছায়  তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশার মধ্যেও নারী শ্রমিকরা পানিতে নেমে বোরো ধান রোপণ করছেন। শীতের কারণে সাধারণ মানুষের জনজীবন যেখানে স্থবির হয়ে পড়েছে, সেখানে কৃষি শ্রমিকরা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। কাকডাকা ভোরে ঘুম থেকে উঠি সংসারের যাবতীয় কাজ শেষ করে কর্মক্ষেত্রে ছুটে যাচ্ছেন শত শত নারী।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর থেকে জানা গেছে, বোরো মৌসুমে  এ উপজেলায় ৫ হাজার ৬শ’ ৮৫ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো ধান রোপণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমানে উপজেলার সর্বত্র প্রচণ্ড শৈত্যপ্রবাহ চলছে। সোমবার তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির নিচে নেমেছে। বেশির ভাগ সময় সূর্য্যরে মুখ দেখা যায় না।এর মধ্যে পুরাদমে বোরো ধানের চারা রোপণ চলছে।

শীত আর কুয়াশাকে উপেক্ষা করে ছুটে চলেছেন নারীরা। ঝড়-বৃষ্টিকেও তোয়াক্কা করেন না তারা। কর্মজীবী এই নারীরা ক্ষেতে-খামারে কাজ করে আয়-রোজগারের মাধ্যমে সংসারের চাকাকে সচল রাখছেন। কৃষি ফসল উৎপাদন ও পরিচর্যা বিশেষ করে শীতের সবজি চাষাবাদ ও নিড়ানিতে অবদান রেখে চলেছেন তারা।

তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশা উপেক্ষা করে মাঠে মাঠে নারী ও পুরুষ কৃষি শ্রমিকরা কাজ করছেন। উপজেলায় বোরো ধান রোপণ পুরোদমে শুরু হয়েছে। গদাইপুর ইউনিয়নের হিতামপুর বিলে বোরো ধান বীজ তলায় কাজে নিয়োজিত  নারী কৃষি শ্রমিক নাছিমা বেগম বলেন, অনেক শীতে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কাদা ও পানিতে নেমে কাজ করতে হচ্ছে। কেউ আমাদের খোঁজ রাখে না।

নারী কৃষি শ্রমিক ফাতেমা বলেন, মাঠে আমরা পুরুষের সমান কাজ করলেও নারী হওয়ায় মজুরি কম পাই। পুরুষরা সারা দিন পাঁচশ টাকা পেলে নারীরা পায় তিন’শ টাকা। মানুষ যখন জবুথবু হয়ে পড়েছে তখন প্রচণ্ড শীত উপেক্ষা করে পেটের দায়ে আমাদের খোলা মাঠে কাজ করতে হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ অসিম কুমার দাশ বলেন, কৃষিতে নারীর সংশ্লিষ্টতা ও অবদান ব্যাপক। কৃষিতে নারী-পুরুষের সমান তালে কাজ করছে। গত মৌসুমে কৃষকরা ধানের দাম বেশি পেয়ে বোরো ধান চাষে ঝুঁকে পড়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে বোরো ধান রোপণের সম্ভাবনা রয়েছে। তীব্র শীতের মধ্যে ধানের চারা রোপণনা করে শীত কমলে চারা রোপণকরার জন্য বলা হয়েছে। তাছাড়াও কৃষি অফিস থেকে শীতের মধ্যে বোরো রোপণ করার বিষয়ে বিভিন্ন পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।