ঈদ বাজার যশোরে শিশুদের পোশাক কেনাকাটার ধুম

এখন সময়: বুধবার, ১৭ এপ্রিল , ২০২৪, ০৫:৪৩:১৫ পিএম

 

মারুফ কবীর : ঈদে সবার আগে নতুন পোশাক কেনা চায় শিশুদের। পরিবারের এই ক্ষুদে সদস্যদের বায়না মেটানোর পর পালা শুরু হয় অন্যদের কেনাকাটার। ফলে ঈদ ঘনিয়ে আসায় যশোর শহরের শিশুদের পোশাকের দোকানে ভিড় বেড়েছে। সন্তানদের সাথে নিয়ে দোকানে দোকানে ঢু মেরে বাবা-মায়েরা পোশাক কেনাকাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। এ বছর শিশুদের পোশাকের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে বলে ক্রেতারা জানিয়েছেন।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, শিশুদের ঈদ আনন্দ অন্য সবার চেয়ে বেশি। তাই ঈদ কাছাকাছি চলে আসায় দোকানে ভিড় বেড়েছে। শিশুদের পোশাকেও বৈচিত্র এসেছে এবার। মেয়েদের লং ফ্রক, কটন ফ্রক ও ডিভাইডার শর্ট স্কার্টের কদর বেশি। আর ছেলেদের পাঞ্জাবি, শার্ট, গেঞ্জি সেট, থ্রি কোয়ার্টার, শর্ট প্যান্ট ও ফুল প্যান্ট বেশি বিক্রি হচ্ছে।

এইচ এমএম রোডে ডরেমনের প্রোপাইটর নাজমুল ইসলাম রিপন বলেন, শিশুদের পোশাক বেশ ভালোই বিক্রি হচ্ছে। চাঁদ রাত পর্যন্ত এই বেচাকেনা চলবে।

সালমা আলম নামে এক গৃহিনী বলেন, ঈদ উপলক্ষে বাচ্চাদের কেনাকাটা আগেই সেরে ফেলছি। শিশুদের পোশাকের দাম নেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করে তিনি। ঈদের আগেও এসব পোশাকের দাম অনেক কম ছিলো।

রাশেদুল ইসলাম নামে এক ক্রেতা বলেন, ঈদ ঘিরে শিশুদের নতুন অনেক পোশাক সংগ্রহে রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। তিনিও দাম বেশি বলে অভিযোগ করেন।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ছোটদের জিন্স প্যান্ট  ৬’শ থেকে ৩ হাজার টাকা। শার্ট ৫’শ থেকে ১৪’শ’ টাকা।  টি শার্ট ৪’শ থেকে ১ হাজার টাকা। মেয়েদের  ফ্রগ ১ থেকে ৬ হাজার টাকা। স্কার্ট ১৩’শ’ থেকে ৩ হাজার টাকা। সারারা নামের ড্রেস ১৫’শ থেকে ২৫’শ টাকা।  টুপিস ও থ্রিপিসের দাম ৮শ’ থেকে ৩ হাজার, লেহেঙ্গা ৭’শ থেকে ২ হাজার। গাউন ১৫’শ থেকে ৫ হাজার টাকা। শার্টের দাম ৪’শ থেকে ১২’শ টাকা।

শিশু পোশাক বিক্রেতা রহমান শেখ বলেন, গরমের মধ্যে এবারের ঈদ। সেই বিবেচনায় পোশাকের সংগ্রহ রয়েছে।